যে খাবার খেয়ে আদালতের পথে রওনা দিলেন খালেদা জিয়া – News Desk BD
 

যে খাবার খেয়ে আদালতের পথে রওনা দিলেন খালেদা জিয়া

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘিরে সারা দেশেই থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। রায় শুনতে বৃহস্পতিবার মামলার প্রধান আসামি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতে যাচ্ছেন। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আদালতে যাওয়ার আগে খালেদার সকালের নাস্তায়ও ছিল দেশি মুরগির স্যুপ, সবজি ও রুটি।

গুলশানের বাসভবন থেকে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বেলা পৌনে ১২টার দিকে আদালতের উদ্দেশে বাসভবন থেকে বের হন খালেদা।

এদিকে সকাল ৯টা ৫৫মিনিটে সানাউল্লাহ আদালতে খালেদা জিয়ার হাজিরা জমা দেন। তিনি জানান, প্রতি তারিখেই খালেদা জিয়া উপস্থিত হওয়ার আগেই তিনি হাজিরা কাগজপত্র জমা দেন। আজও জমা দিলেন। বেলা ১১টা-সোয়া ১১টা নাগাদ তিনি আদালতে হাজির হবেন।

এদিকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সুপ্রিমকোর্ট বারের সাবেক সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, বর্তমান সভাপতি জয়নুল আবেদীন, মীর নাসির উদ্দীন, ব্যারিস্টার নিতাই চন্দ্র রায়, সানাউল্লাহ মিয়া, আজিজুর রহমান খান বাচ্চু, আমিনুল ইসলাম, জয়নুল আবেদীন মেজবাহ আদালতে উপস্থিত হয়েছেন। রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে উপস্থিত হয়েছেন, অ্যাডভোকেট খন্দকার আব্দুল মান্নান, মীর আব্দুস সালাম প্রমুখ।

কবিরাজ: তপন দেব ।

নারী-পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষধ পাঠানো হয়।

আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

এদিন জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করবেন ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি আদালতের উপস্থিত হয়েছেন।

গত ২৫ জানুয়ারি রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য ৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন। এ মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন ৩২ জন। ১২০ কার্যদিবসের বিচারকার্য শেষ হয়েছে ২৩৬ দিনে। আত্মপক্ষ সমর্থনে গেছে ২৮ দিন। যুক্তি উপস্থাপন চলেছে ১৬ দিন। আর আসামি পক্ষ মামলাটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উচ্চ আদালতে গিয়েছেন ৩৫ বার।

[Close]

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় একটি মামলা করে দুদক। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ।

লাইক দিন ও জনস্বার্থে শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*